Welcome

আমার সম্পর্কে

হাফিজুর রহমান

লেখক, ব্লগার, সোশ্যাল একটিভিস্ট

খুব সাধারণ একটি মানব পরিবারে জন্ম আমার। মানুষ হইতে পারিয়াছি কিনা এখনো জানি না। তবে সবসময় মানুষের কল্যান করিবার চেষ্টা করি। পারিবারিক জীবনে এক স্ত্রী ২ সন্তানের সংসার আমার। জনক হিসাবে ছেলেদেরকে মানুষের মত মানুষ তৈরি করিবার চেষ্টা অফুরন্ত। হাফিজুর রহমান নামে ব্যক্তি জীবনে পরিচিত আমি। সময় ও সুয়োগ পাইলে পড়িতে ভালবাসি। পড়িতে পড়িতে কখনো মনের অতৃপ্ত বাসনা পুরণে কিছু লিখিবার চেষ্টা করি। আর সেই লেখাগুলোকে অন্তর্জালে সংরক্ষণ করিয়া রাখিবার জন্য এই ব্লগ।

লেখার শুরু যেভাবে-
লিখার হাতেখড়ি সেই শিশুবেলায় বদিয়ার মামার হাত থেকে। প্রথম অক্ষর যতটুকু মনে পড়ে আমাদের পুকুর এবং বাবার টাকাভরা গোলার ছবি। বাবার কিনিয়া দেওয়া শ্লেট আর পেন্সিল দিয়া গোল গোল করিয়া লিখে/এঁকে দিতাম বদিয়ার মামার নিকট। বলতাম এটা আমাদের পুকুর, এটা আমার বাবার টাকার গোলা…। এরপর লেখাপড়ার গণ্ডি পার করিয়া কর্মক্ষেত্র। বৈবাহিক জীবনে লেখার প্রসার ঘটে পত্র লিখিয়া। তখন যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম ছিল পত্র। এরপর আসে মোবাইল যুগ, পত্র লেখার দিন হয় সমাপ্ত। তবে আরো আধুনিককালে অন্তর্জালের কল্যানে পরিচয় হয় বাংলা ব্লগের সহিত। নিয়মিত পড়িতে এবং লিখিতে সদস্য হই আমারব্লগ.কম এ।

আমার লেখা প্রথম ছাপার অক্ষরে প্রকাশ হয় আমার প্রকাশনী থেকে ২০০৯ সালে ”আমার বই” নামক সংকলনে। ইহাছাড়া ইবুকে’র অনেক সংকলনে প্রকাশিত হয় আমার লেখনি। ২০১০ সালে পালকি প্রকাশন আমার একক বই মুক্তিযুদ্ধের অণুগল্প গ্রন্থ প্রকাশ করে একুশে বইমেলায়। এরপর ২০১৯ সালে অগ্রদূত প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয় যে গল্প হয় না লেখা গল্পগ্রন্থ। ২০২০ সালে অগ্রদূত প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয় যেদিন মৃত ছিলাম উপন্যাস।

খুলনার স্থানীয় পত্রিকা দৈনিক প্রবর্তন, সাপ্তাহিক খুলনার বানীতে ২০০৮ ও ২০০৯ সালে নিয়মিত আমার লেখা প্রকাশ হয়। দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় ৬ আগষ্ট, ২০১০ তারিখ প্রথম জাতীয় দৈনিকে আমার লেখা ছাপা হয়। এরপর বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয় আমার লেখা প্রবন্ধ ও নিবন্ধ। বন্ধুদের অনুরোধে স্বকণ্ঠে আবৃত্তি করতে হয় আমার একটি অনবদ্য লেখা। আবৃত্তিটি ডকুমেন্টারি আকারে প্রকাশিত হয় ২০১৯ সালে। শুনতে এবং দেখতে ক্লিক করুন এখানে

আমার দুনিয়া… আমার ফেসবুক পেজ, লেখালেখির জগৎ আমার…। এ পেজের মাধ্যমে তুলে ধরি সমাজের বাস্তবতা ও নিজের মতামত। আপনিও পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকতে পারেন। এছাড়াও পেজের ইনবক্সে জানাতে পারেন আপনার মতামত এবং কোন জানতে চাওয়া।

মনের ভাবনা, মগজের খোরাক, চিন্তার প্রতিফলন। এই তো লেখালেখি। নিজের ভাবনাগুলো যখন পরিপক্কতা পা্ইতে থাকে; মনের মাধুরি তখন আকুপাকু করে মগজের রন্ধ্রে। ভাবনার বহি:প্রকাশ তখন আপনিই হইয়া যায়। ভাবনারা যেখানে প্রতিফলিত হয় কোনোরকম বাঁধা ছাড়াই। তাইতো এত এত প্রিয় বন্ধুদের সহিত নিজের ভাবনা শেয়ার করি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। যেখানে নিত্য-নৈমিত্তিক, প্রাত্যহিক, আনুষঙ্গিক, প্রাসঙ্গিক, আলোচিক সবই আলোচনা হয় মন খুলে। বন্ধুদের ভালো লাগা, মন্দ লাগা, পরামর্শ সবই মেলে। তাইতো এ যেনো হইয়া ওঠেছে আজ নিজের দর্পণসম। ফেসবুকে আমি

ভালো লাগে জোছনা রাতে ওই তারার সাথে মিতালী করতে… তবে ভালো লাগে নিজের কর্ম নিয়ে গর্ব করতেও। যদিওবা কখনো খারাপ কিছুটা লাগে, তবে এটাই স্বাভাবিক। নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি কর্মস্থলে অর্পিত দায়িত্ব পালন করিয়া দেশ ও দেশের মানুষের সেবা করার সুযোগ পেয়ে। আবার স্বদেশের বিভিন্ন স্থানে কর্মস্থলের সুবাদে এলাকা, এলাকার মানুষ, বিভিন্ন এলাকার কৃষ্টি ও সাংস্কৃতি সম্পর্কে জানতে পারা, এটাইবা কম কিসে? তাইতো আমি গর্বিত আমার কর্ম আর কর্মস্থল নিয়ে। সুখ অনুভব করি আমার পরিবার নিয়ে।

আমার পরিবার – আমার দুনিয়া

2011

হাফিজুর রহমান

আমার আমি

Anamika

জীবন সঙ্গিনী ও আমার প্রেরণা

তানভীর আহসান অপি (আমার ভবিষ্যৎ-১)

নাহিদ আহসান অপু (আমার ভবিষ্যৎ-২)

.

Leave a Reply